মুরাদনগরে লকডাউনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে চেয়ারম্যান গেলেন নৌকা ভ্রমনে



 সরকার ঘোষিত প্রথম বারের মতো টানা ১৪ দিনের কঠোর লকডাউনের ৪র্থ দিন ছিল গতকাল সোমবার। প্রশাসনসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী প্রতিদিনের ন্যায় সোমবার সকাল থেকেই লকডাউন বাস্তবায়নে তৎপর ভূমিকা পালন করছেন, ঠিক তখনই কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন তিতাস নদী থেকে ৩০ জনের বহর নিয়ে নৌকা যোগে বি-বাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ওয়াই ব্রীজ ঘাটে গেলেন নৌকা ভ্রমনে। 

ভ্রমনে থাকা বিভিন্ন লোকজন বাহারী ভঙ্গিতে ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়। ভাইরাল হওয়া ছবিগুলোতে কারো মুখেই মাস্ক দেখা যায়নি। এমন ঘটনায় বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় ওঠেছে। সরকার যেখানে সকলকে ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন, সেখানে একজন ইউপি চেয়ারম্যান বহর নিয়ে নৌকা ভ্রমনে যাওয়ার বিষয়টি সরকারি আদেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখানোর সামিল মনে করছেন স্থানীয়রা।

ধনীরামপুর গ্রামের মজিবুর রহমান নামের একজন বলেন, রোববার বিকেলে মায়ের জন্য ওষুধ আনতে গিয়ে প্রশাসনের তোপের মুখে পড়েছি। আর আজ সোমবার ফেসবুকে দেখেছি, চেয়ারম্যান দলবলে গেছেন নৌকা ভ্রমনে। আইনকি শুধু আমাদের মতো সাধারণ মানুষের জন্য?

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৫ থেকে ৬ জন স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা বলেন, গা বাঁচানোর জন্য বিএনপি থেকে এসে এখন আওয়ামী লীগের বড় নেতা বনে গেছেন। তিনি বিএনপির লোকজন নিয়ে সবসময় ইউনিয়ন পরিষদ অফিসে আড্ডা দেন। তার এ প্রতিফলন ঘটিয়েছেন যুবদলের  সাবেক উপজেলা নেতা আহসান হাবিব শামীম ও জামায়াত নেতা আবুল কালামকে নৌকা ভ্রমনে নিয়ে গিয়ে। 

Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন